editor

প্রকাশিত: ৭:৪৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০

এবার দক্ষিণ এশীয়দের সমর্থন বাইডেনের দিকে

এবার দক্ষিণ এশীয়দের সমর্থন বাইডেনের দিকে
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে ব্যক্তিগত সখ্য রয়েছে। গত বছর সেপ্টেম্বরে তাঁরা দুজন টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের হিউস্টনে হাতে হাত মিলিয়ে লাখখানেক ভারতীয়র সামনে হাজির হয়েছেন, ভাষণ দিয়েছেন। ভারতে গিয়ে মোদির নিজের রাজ্য গুজরাটে স্টেডিয়ামভর্তি মানুষের সামনে ভাষণ দিয়ে ট্রাম্পও দুই দেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
এ ছাড়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট পাকিস্তানের ব্যাপারে সমালোচনামুখর হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী ভারতীয়দের মধ্যেও জনপ্রিয়। এই প্রবাসীদের আমন্ত্রণে ট্রাম্পের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প ভার্জিনিয়ায় দীপাবলি উৎসবে যোগ দিয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই ট্রাম্প আশা করবেন, নভেম্বরের নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ভারতীয়রা তাঁকেই ভোট দেবেন।

যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে বাস করেন, এমন ভারতীয়র সংখ্যা প্রায় ৪০ লাখ। তাঁদের অধিকাংশেরই বাস নিউইয়র্ক, নিউ জার্সি ও ক্যালিফোর্নিয়ার মতো ডেমোক্রেটিক-প্রধান অঙ্গরাজ্যগুলোয়। এসব অঙ্গরাজ্যে এই অভিবাসীদের ভোট প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে খুব একটা প্রভাব ফেলবে না। কিন্তু কংগ্রেস ও সিনেট নির্বাচনে তাঁদের ভোট যথেষ্ট গুরুত্ব বহন করে। তবে উইসকনসিন ও মিশিগানের মতো অঙ্গরাজ্যগুলোর ভোট নির্বাচনের ফলাফল নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। এসব অঙ্গরাজ্যেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ভারতীয়র বাস। সে হিসাবে তাঁদের ভোট গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতীয়দের মতো বাংলাদেশি-আমেরিকানদেরও প্রধানত ‘নীল’ বা ডেমোক্রেটিক অঙ্গরাজ্যগুলোয় বসবাস। মোট সংখ্যার হিসাবে যা ১ লাখ ৭০ হাজারের মতো।

অধিকাংশ বাংলাদেশি রাজনৈতিকভাবে অসম্পৃক্ত ও ভোট দেওয়ার ব্যাপারে অনাগ্রহী। এই প্রবণতা অবশ্য বদলাচ্ছে। নভেম্বরের নির্বাচনে জাতীয় ক্ষেত্রে তাঁদের ভোট কোনো লক্ষণীয় প্রভাব না ফেললেও স্থানীয় পর্যায়ে প্রভাব ফেলবে।

 প্রথাগতভাবে অধিকাংশ দক্ষিণ এশীয় অভিবাসী ডেমোক্রেটিক পার্টির সমর্থক। ২০১২ সালে পিউ সার্ভের এক জরিপের তথ্য অনুসারে, ৬৫ শতাংশ ভারতীয় ডেমোক্রেটিক পার্টির সমর্থক। ২০০৮ সালের নির্বাচনে প্রায় ৮৪ শতাংশ ভারতীয় ডেমোক্রেটিক পার্টির সে সময়ের প্রার্থী বারাক ওবামার পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন। ট্রাম্প-মোদির সখ্যের কারণে এই সমর্থনে কিছুটা ভাটা পড়েছে—এতে কোনো সন্দেহ নেই। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার রাষ্ট্রবিজ্ঞানী কার্তিক রামাকৃষ্ণান সম্প্রতি ভারতীয়দের রাজনৈতিক সংযুক্তি প্রশ্নে একটি সীমিত আকারের জরিপ চালিয়েছেন। তাঁর হিসাব অনুসারে, ৫৪ শতাংশ ভারতীয়-আমেরিকান জো বাইডেনের সমর্থক। ট্রাম্পের সমর্থক, এমন ভারতীয়-আমেরিকানের সংখ্যা ২৯ শতাংশ। বাংলাদেশিদের মধ্যে এ ধরনের কোনো জরিপ হয়নি। তবে ট্রাম্প ও বাইডেনের প্রতি বাংলাদেশিদের সমর্থনের আনুপাতিক হিসাব ভারতীয়দের অনুরূপ বলেই মনে করা হয়। বাইডেনের পক্ষে একাধিক বাংলাদেশি-আমেরিকান গোষ্ঠী কাজও করছে। সম্প্রতি ফিজিতে সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ওসমান সিদ্দিকের নেতৃত্বে মূলত বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে ‘সাউথ এশিয়ান্স ফর বাইডেন’ নামে একটি গ্রুপ গঠিত হয়েছে।

দক্ষিণ এশীয়, বিশেষত ভারতীয়দের নিজেদের দলে টানতে কয়েক বছর ধরে রিপাবলিকান পার্টি পরিকল্পিত উদ্যোগ নিয়েছে। তাদের এই উদ্যোগে বড় রকমের সহায়ক ছিল জাতীয় পর্যায়ে একাধিক ভারতীয় বংশোদ্ভূত রাজনীতিকের আবির্ভাব। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন লুইজিয়ানার সাবেক গভর্নর ববি জিন্দাল ও সাউথ ক্যারোলাইনার সাবেক গভর্নর নিকি হ্যালি। তবে তাঁদের প্রভাব তেমন বিস্তৃত হয়নি। চলতি ট্রাম্প প্রশাসনেও বেশ কয়েকজন ভারতীয় গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন। অন্যদিকে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও বারাক ওবামার প্রশাসনে তুলনামূলকভাবে বেশিসংখ্যক ভারতীয় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। জাতীয় রাজনীতিতেও ডেমোক্রেটিকপন্থী ভারতীয়দের অংশগ্রহণ অনেক বেশি তাৎপর্যপূর্ণ। সিনেটর কমলা হ্যারিস ছাড়াও চলতি মার্কিন কংগ্রেসে চারজন সদস্য ভারতীয় বংশোদ্ভূত। নভেম্বরের পর এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

এরপরও এখনো যাঁরা ট্রাম্পের ব্যাপারে উৎসাহী, কমলা হ্যারিসকে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেনের রানিংমেট করায় তাঁরা অবস্থান পরিবর্তন করবেন বলে মনে করা হচ্ছে। অনেক ভারতীয় অবশ্য অভিযোগ করেছেন, কমলা নিজেকে একজন কালো মানুষ হিসেবে উপস্থাপনেই বেশি আগ্রহী। নিজের মায়ের কথা উল্লেখ করা ছাড়া তাঁর ভারতীয় পরিচয় তিনি খুব সামান্যই তুলে ধরেন। এই সমালোচনার মুখে সাম্প্রতিক সময়ে কমলা দুই ভারতীয় অভিনেতা মিন্ডি কালিং ও হাসান মিনহাজের সঙ্গে একাধিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন।

অধ্যাপক কার্তিক রামাকৃষ্ণান মনে করেন, যেসব দক্ষিণ এশীয়, বিশেষত ভারতীয় ২০১৬ সালে ট্রাম্পের পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন, আগামী নির্বাচনে তাঁদের অনেকেই বাইডেনকে সমর্থন করবেন। এর একটা বড় কারণই হলো কমলা হ্যারিস।

 

Sharing is caring!


সর্বশেষ সংবাদ

ওমরার ভিসা নিয়ে সুখবর দিল সৌদি আরব

ওমরার ভিসা নিয়ে সুখবর দিল সৌদি আরব

পবিত্র ওমরাহ পালনে আগ্রহী ব্যক্তিদের জন্য ইলেকট্রনিক ভিসা বা ই-ভিসা চালু করেছে সৌদি আরব। দেশটি এবার ওমরাকারীদের জন্য ই-ভিসা চালু

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান

সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। তিনি জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন। রোববার (২৩ জুন) এক

সিলেট-সুনামগঞ্জের এসপি বদলি

সিলেট-সুনামগঞ্জের এসপি বদলি

সিলেট জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন পিপিএম কে বদলি করা হয়েছে। তার স্থলে কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার

বাংলাদেশের সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখল আফগানিস্তান

বাংলাদেশের সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখল আফগানিস্তান

ভারতের কাছে হেরে ২০২৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলার স্বপ্ন ফিকে হয়ে গেছে বাংলাদেশের। তবে সাকিব-শান্তদের লড়াই এখনও শেষ হয়নি। কারণ

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার (২৩

কথিত বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের কল্যাণে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারন করে: মিফতাহ্ সিদ্দিকী

কথিত বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের কল্যাণে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারন করে: মিফতাহ্ সিদ্দিকী

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমান নিবিড় ভাবে সিলেট সুনামগঞ্জ সহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। সিলেট সদর

সিলেটে ৩৯২ বস্তা ভারতীয় চোরাইচিনিসহ আ ট ক ১

সিলেটে ৩৯২ বস্তা ভারতীয় চোরাইচিনিসহ আ ট ক ১

সিলেটে এবার ৩৯২ বস্তা ভারতীয় চোরাইচিনিসহ একজনকে আটক করা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় দক্ষিণ সুরমা থানাধীন রশিদপুরস্থ ঢাকা-সিলেট

বন্যা দুর্গত পানি বন্দী মানুষের মাঝে চিকনাগুল প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

বন্যা দুর্গত পানি বন্দী মানুষের মাঝে চিকনাগুল প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলায় মানবিক কাজে নিয়জিত প্রবাসী রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত চিকনাগুল প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের পক্ষ থেকে